‘নারীরাই আক্রোশের শিকার হয়েছে বেশি’

রোহিঙ্গা রাজ্যে মিয়ানমার প্রতিরক্ষা বাহিনী যে গণহত্যা চালিয়েছে তাতে নারীরাই বেশি আক্রোশের শিকার হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পৃথিবী বিখ্যাত তিন নোবেল জয়ী নারী।
সোমবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে গণমাধ্যমকে তারা এ কথা বলেন।
তারা বলেন, মিয়ানমার ত্যাগের পূর্বেই প্রায় ৫৪ শতাংশ নারী ধর্ষিত হয়ে বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে। তাদেরকে  আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন তারা।
শান্তিতে নোবেল বিজয়ী তিন নারী ইরানের শিরিন এবাদি, ইয়েমেনের তাওয়াক্কল কারমান ও যুক্তরাজ্যের মেরেইড ম্যাগুয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে শনিবার বাংলাদেশ সফরে আসেন।
রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে রোববার তারা কক্সবাজার পৌঁছান। সফরে কক্সবাজারে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তারা উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।
তারা বলেন, লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ সরকার বিশ্বে মানবিকতার একটি বড় উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। তাদের সব ধরনের মানবিক সহায়তা দেয়া সত্যিই দৃষ্টান্তমূলক।
মিয়ানমারে পরিচালিত সহিংসতা বিষয়ে তারা বলেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পরিকল্পিতভাবে গণহত্যা চালানো হয়েছে। এ হত্যাকান্ডের পূর্বে সেখানে ধর্ষিত হয়। যারা এখন অন্তঃস্বত্তা। এজন্য আন্তর্জাতিক আদালতে অং সান সুচির বিচারের দাবি জানান তারা।
সফর শেষে, কক্সবাজার ও ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাঁরা রোহিঙ্গাদের বিষয়ে তাঁদের সুপারিশ উপস্থাপন করবেন বলেও জানান।
প্রসঙ্গত, আগামী ১লা মার্চ এই তিন নোবেল জয়ী নারীরর ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে।
আজকের বাজার : এমআর /আরএম/২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮