প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক: রিজভী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদে কোটা বাতিলের কথা বলে গোটা জাতিকে হতাশ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী একথা বলেন।

রিজভী বলেন, আন্দোলনকারীদের দাবিকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন না করে ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে তিনি (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) কোটা বাতিলের কথা বলেছেন। সরকার প্রধানের কোটা বাতিলের ঘোষণা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

তিনি বলেন, সংবিধানে জাতি-গোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধীদের কোটা দেওয়ার বিধান সুষ্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে। সরকার শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কারের দাবিকে আমলে নেয়নি। আন্দোলনকারী ছাত্র-ছাত্রী ও চাকরি প্রার্থীরা মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানসহ প্রান্তিক জাতি-গোষ্ঠী ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের কোটার বিরোধিতা করেননি। তারা কোটা পদ্ধতির সংস্কার চেয়েছে। এই ঘোষণায় সরকারের কূটচাল রয়েছে।

রিজভী বলেন, আন্দোলনকারীদের দমানোর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নানা অপকৌশল প্রয়োগের আশ্রয় নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে যতো না কোটা সংস্কার আন্দোলনের মূল সমস্যাটি সমাধানের দিক নির্দেশনা এসেছে, তার চেয়ে বেশি এসেছে ক্ষোভ প্রকাশ, বিরক্তি ও হুমকি।

বিএনপির সিনিয়র এই নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী কোটা বাতিলের যে ঘোষণা দিলেন সেটি বাস্তবায়িত হলে এর বিরুদ্ধে যে কেউ রিট করলে তা বাতিল হয়ে যাবে। কারণ সংবিধানে এ বিষয়টি নিয়ে সুষ্পষ্ট বিধান রয়েছে। কিন্তু কোটার যে বিষয়গুলো বিধানে নেই, সেগুলো সংবিধান সংশোধন ছাড়াই সরকার সংস্কার করে তা কমিয়ে আনতে পারে।

 

এস/