রাতকানা বাদুর ‘দুদক’!

দুদক হল রাতকানা বাদুরের মতো বলে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা মন্ত্রিত্ব করছেন। তখন তার চোখ কানা হয়ে যায়। আজ বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

রিজভী বলেন, বর্তমান সরকারের দুইজন মন্ত্রী সাজাপ্রাপ্ত। রাতকানা বাদুর এইজন্যই বলছি।

অভিযোগ করে তিনি বলেন, সারাদেশে সরকারি অর্থ লুট হচ্ছে। সোনালী ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, পদ্মা সেতুতে লুট হচ্ছে। সেখানে দুদক কিছু দেখছেন না। অথচ বিএনপির বেলায় তারা রাতকানা বাদুরের মতো আচরণ করছেন। যে অন্ধ, যে কানা সে কখনো অপরের স্বচ্ছতা দেখতে পায় না।

রিজভী বলেন, দুদক দলীয় এজেন্ডা নিয়ে এখানে কাজ করছেন। যার চাকরি করছেন তার কথা শুনতে হচ্ছে। একদলীয় শাসনের নির্দয় রূপ আমরা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে দেখতে পাচ্ছি। যারা একটু বিবেকবান তাদের বন্দুকের নল দিয়ে সরিয়ে দেয়া হয়। তাদের কোথাও স্থান নেই।

বিএনপি এ নেতা বলেন, খালেদা জিয়াকে যে প্রক্রিয়ায় আটকে রাখা হয়েছে তাতে মনে হচ্ছে তার কাছ থেকে একটা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টায় আছে। তারা ভাবছে এভাবে করলে খালেদা জিয়া হয়তো এক পর্যায় সব মেনে নেবেন। এক তরফা নির্বাচন ও খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্যই এই নির্দয় ষড়যন্ত্র করছে।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে চাই, এদেশে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় সে নির্বাচনে বিএনপি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব খাইরুল কবির খোকন, টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সভাপতি কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এস/